Daily Sylhet Sangbad - Latest Bangla News বিশ্বনাথে প্রবাসীর বিরুদ্ধে পুকুরের পানি নিস্কাশন বন্ধ করার অভিযোগ : উত্তেজনা
বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৩:৩৬ পূর্বাহ্ন

সিলেট



নিজস্ব প্রতিবেদন

প্রকাশ: ২০২২-০৭-৩১ ০৭:৪১:০৭


বিশ্বনাথে প্রবাসীর বিরুদ্ধে পুকুরের পানি নিস্কাশন বন্ধ করার অভিযোগ : উত্তেজনা

সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার সাধুরগাঁও গ্রামে পুকুরের পানি নিস্কাশন ব্যবস্থা বন্ধ করার অভিযোগ উঠেছে আলী হাসান কামরুল নামের এক যুক্তরাজ্য প্রবাসীর বিরুদ্ধে। পানির পাইপের মুখে দেয়াল নির্মাণ করে পানি নিস্কাশন ব্যবস্থা স্থয়ীভাবে বন্ধ করে দেওয়ায় প্রবাসী আলী হাসান কামরুল (৩২) ও পুকুর মালিক লাইছ মিয়া (৫৫) পক্ষের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। তারা দু’জনই ওই গ্রামের বাসিন্দা। 

এ নিয়ে দু’পক্ষই বিশ্বনাথ থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। এ ঘটনায় সংঘর্ষের আশংকাও করছেন এলাকাবাসী। রোববার (৩১ জুলাই) এলাকাবাসীর পক্ষে গ্রামের আব্দুল আলীম নামের ক্ষতিগ্রস্ত একজন বিশ্বনাথ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে ওই প্রবাসী কামরুলের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

এতে আরও অভিযুক্ত করেছেন প্রবাসী কামরুলের চাচাতো ভাই গৌছ আলী (৪৫), বাবুল মিয়া (২৫), শশুড় সুন্দর আলী (৬৫), শ্যালক বদরুল ইসলাম (২১), ভাতিজা মামুন মিয়া (২০) সহ অজ্ঞাতনামা আরও কয়েকজনকে। আব্দুল আলীম ও লাইছ মিয়ার দাবি, পানি নিস্কাশন বন্ধ করায় জলাবদ্ধতার সৃস্টি হয়ে ‘কালিগঞ্জ-মনাইকান্দি’ সড়কের সাধুরগাঁও এলাকার বেশ কিছু অংশ ভেঙে যাচ্ছে। পানিবন্ধী হয়ে পড়েছেন পুকুর মালিক লাইছ মিয়া ও প্রতিশেী ইছাক আলী এবং ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন তিনিও।

স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানাগেছে, দীর্ঘ ২০ বছর ধরে সাধুরগাঁও গ্রামের লাইছ মিয়ার পুকুরের পানি ‘কালিগঞ্জ-মনাইকান্দি’ পাকা সড়কের নিচের পাইপ দিয়ে নিস্কাশন হয়ে আসছিল। কিন্তু নিজের জায়গা হওয়ায় সম্প্রতি তা বন্ধ করে দেন একই গ্রামের যুক্তরাজ্য প্রবাসী আলী হাসান কামরুল। এতে দু’পক্ষে উত্তেজনা দেখা দেয়। সংঘর্ষ এড়াতে আব্দুল আলীম মধ্যস্থতা করে সাধুরগাঁও ও দাউদপুর গ্রামের পঞ্চায়েতগনের স্মরনাপন্ন হন।

এক পর্যায়ে দেওকলস ইউনিয়ন চেয়ারম্যান খায়রুল আমিন আজাদ, ইউপি সদস্য শহিদুল ইসলামের উপস্থিতিতে পঞ্চায়েতগণ বিষয়টি নিস্পত্তি করার চেষ্টা করেন। কিন্তু এতে আরও ক্ষিপ্ত হন প্রবাসী কামরুল। গত বুধবার (২৭ জুলাই) পুকুর মালিক লাইছ মিয়া, আব্দুল আলীমসহ কয়েকজনকে আসামি করে থানায় লিখিত অভিযোগ দেন।

ওইদিন রাতে তার পক্ষের লোকজনকে সঙ্গে নিয়ে পাইপের মুখে দেয়াল নির্মাণ করে পানি নিস্কাশন ব্যবস্থা একেবারেই বন্ধ করে দেন। ফলে, জলাবদ্ধতার সৃস্টি হয়ে এলজিইডির ‘কালিগঞ্জ-মনাইকান্দি’ পাকা সড়কের বেশ কিছু অংশ ভেঙে যাচ্ছে এবং ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন পুকুর মালিকসহ সাধুরগাঁয়ের বাসিন্ধারা।

এতে ওই প্রবাসী ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য গত শুক্রবার (২৯ জুলাই) থানায় পাল্টা অভিযোগ দেন পুকুর মালিক লাইছ মিয়া। আর রোববার প্রবাসীসহ তার চাচাতোভাই, শশুড়র ও শ্যালকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ইউএনও বরাবরে অভিযোগ দেন আব্দুল আলীম। অভিযোগ পেয়ে থানার তদন্ত ওসি জাহিদুল ইসলাম, এসআই আজহার, এসআই আবুল কাশেম, এসআই দ্বিপংকর সরকার কয়েক দফা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করলেও কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি বলে জানান পঞ্চায়েত পক্ষের লোকজন।

এ ব্যাপারে মুঠোফোনে জানতে চাইলে প্রবাসী আলী হাসান কামরুল এ বিষয়টি এড়িয়ে গিয়ে বলেন, আমি এখনও বৈঠকে আছি, দুই ঘন্টা পরে আপনাকে কল দিয়ে কথা বলবো।

স্থানীয় ইউপি সদস্য শহিদুল ইসলাম ও সাধুরগাঁও মসজিদ কমিটির কোষাধ্যক্ষ মাহমদ আলী বাবুল বলেন, পঞ্চায়েতগণ বিষয়টি নিস্পত্তির চেষ্ঠা করেছিলেন কিন্তু প্রবাসী তাদের কথা না মানায় তারা ব্যর্থ হয়েছেন।

বিশ্বনাথ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) গাজী আতাউর রহমান বলেন, তদন্ত ওসি জাহিদুল ইসলাম ছুটিতে আছেন, অভিযোগের বিষয়টি তিনি দেখবেন।

এব্যাপারে জানতে বিশ্বনাথ থানার তদন্ত ওসি জাহিদুল ইসলামের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্ঠা করা হলেও তিনি ফোনকল রিসিভ করেননি।

উপজেলা প্রকৌশলী মো. আবু সাঈদ বলেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট যে অভিযোগ দেয়া হয়েছে সেটার অনুলিপি তিনি পেয়েছেন। এরই মধ্যে গোপন তদন্তে ঘটনার সত্যতাও পেয়েছেন। আরও তদন্তের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে তিনি তার উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানাবেন বলে জানিয়েছেন।

 অভিযোগ পাওয়ার সত্যতা স্বীকার করে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) নুসরাত জাহান জানান, বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


ডেসিস/জকে/ ৩১ জুলাই ২০২২ইং

শেয়ার করুন

পাঠকের মতামত

এ বিভাগের আরো সংবাদ

Google Ad Code Here