Daily Sylhet Sangbad - Latest Bangla News করোনায় প্রাণ হারালেন গণসংগীতশিল্পী ফকির আলমগীর
বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৪:৪০ পূর্বাহ্ন

লাইফস্টাইল



ডেসিস ডেস্ক

প্রকাশ: ২০২২-০২-১৬ ০৬:২৫:২৪


করোনায় প্রাণ হারালেন গণসংগীতশিল্পী ফকির আলমগীর

করোনায় প্রাণ হারালেন গণসংগীতশিল্পী ফকির আলমগীর। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭১ বছর। শুক্রবার (২৩জুলাই) রাত রাত ১০টা ৫৬ মিনিটে তাকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা।

এর আগে রাত ১০ টারদিকে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালের কোভিড ইউনিটে ভেন্টিলেশনে থাকা অবস্থায় তার হার্ট অ্যাটাক হয়। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, তিন ছেলে রেখে গেছেন। গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ফকির আলমগীরের ছেলে মাশুক আলমগীর রাজীব। তিনি জানান, গত ১৪ জুলাই তার বাবার শরীরে করোনার সংক্রমণ ধরা পড়ে। এরপর চিকিৎসকের পরামর্শে বাসাতেই চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছিলো।

কিন্তু পরদিন ১৫জুলাই সন্ধ্যা থেকে তার জ্বর ও শ্বাসকষ্ট গেলে তাকে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।জানাগেছে, ফকির আলমগীর ১৯৫০ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি ফরিদপুর জেলার ভাঙ্গা থানার কালামৃধা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা মো. হাচেন উদ্দিন ফকির, মা বেগম হাবিবুন্নেসা। জগন্নাথ কলেজ থেকে স্নাতক পাস করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাংবাদিকতায় এমএ ডিগ্রি অর্জন করেন তিনি। স্বাধীনতার পর ফকির আলমগীর পপ ঘরানার গানে যুক্ত হন। পাশ্চাত্য সংগীতের সঙ্গে বাংলার লোকজ সুরের সমন্বয় ঘটিয়ে তিনি বহু গান করেছেন।

সংগীতে অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে ১৯৯৯ সালে সরকার তাকে একুশে পদকে ভূষিত করে।ফকির আলমগীর ১৯৬৬ সালে ছাত্র ইউনিয়নের সক্রিয় সদস্য ছিলেন। ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থান, একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে তিনি সামিল হন তার গান দিয়ে। মুক্তিযুদ্ধের পর যে কজন শিল্পী বাংলাদেশে পপ ঘরানার গানের চর্চা শুরু করেছিলেন, ফকির আলমগীর ছিলেন তাদের মধ্যে অন্যতম।

১৯৮২ সালের বিটিভির ‘আনন্দমেলা’ অনুষ্ঠানে ফকির আলমগীরের গাওয়া ‘ও সখিনা গেছস কিনা ভুইল্যা আমারে’ গানটি এখনও লোকমুখে ফিরে।


রু

শেয়ার করুন

পাঠকের মতামত

এ বিভাগের আরো সংবাদ

Google Ad Code Here