Daily Sylhet Sangbad - Latest Bangla News রামপাশায় চুরির ১২দিনেও মামলা হয়নি, অভিযোগ ব্যবসায়ীর
বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৫:১৪ পূর্বাহ্ন

সিলেট



নিজস্ব প্রতিবেদন

প্রকাশ: ২০২২-০৭-২০ ০৭:০৩:১১


রামপাশায় চুরির ১২দিনেও মামলা হয়নি, অভিযোগ ব্যবসায়ীর

সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার রামপাশা বাজারের ‘সাইম সুজ এন্ড টেলিকম’ নামের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে চুরি হওয়ার ১২দিন পার হলেও মামলা না নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে পুলিশের বিরুদ্ধে।

রামপাশা বাজারের ‘সাইম সুজ এন্ড টেলিকম’র মালিক দিলোয়ার হোসেনের অভিযোগ, চালের টিন কেটে দোকান ঘরে প্রবেশ করে নগদ টাকা, নতুন মোবাইল ফোন সেটসহ প্রায় এক লাখ ৭৪ হাজার ৫৪০ টাকার মালপত্র চুরি করে নিয়ে যায় চুরেরা। পরে থানা পুলিশ ঘটাস্থল পরিদর্শন করেন। এরপর থানায় লিখিত অভিযোগ দেওয়ার ১২দিনেও থানা পুলিশ চুরির মামলা নেয়নি।

রামপাশা বাজারের ব্যবসায়ীদের নিয়ে আন্দোলনের ডাক দেওয়ার পাশাপাশি প্রয়োজনে আদালতের স্মরনাপন্ন হওয়ার কথাও জানান এই ব্যবসায়ী। ‘সাইম সুজ এন্ড টেলিকম’র মালিক দিলোয়ার হোসেন রামপাশা গ্রামের মৃত হাজী আছন আলীর ছেলে।

তবে, চুরির এ ঘটনাটি এখনও তদন্ত করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন অভিযোগ তদন্তের দায়িত্বপ্রাপ্ত থানার এসআই বিনয় ভূষন চক্রবির্ত। তিনি এ প্রতিবেদককে বলেন, ভাই ওসি স্যারের নির্দেশে আমি রামপাশা বাজারের চুরির এ ঘটনাটি ব্যাপকভাবে তদন্ত করছি। এরই মধ্যে কিছু তথ্য-প্রমাণও মিলানোর চেষ্টা চালাচ্ছি। তদন্ত শেষ হওয়ার পর চুরির এ ঘটনাটি মামলা নেওয়া হবে।

দোকান মালিক দিলোয়ার হোসেন জানান, গত ৭জুলাই রাত ৯টার দিকে প্রতিদিনের মত ব্যবসা প্রতিষ্ঠান তালাবদ্ধ করে তিনি বাড়ি ফিরেন। পরদিন ৮ জুলাই সকালে গিয়ে তালা খুলে দেখেন ক্যাশে থাকা নগদ ৭ হাজার টাকা, বিক্রির জন্যে রাখা এক লাখ টাকা মূল্যের ৫৫টি বাটন মোবাইল ফোনসেট, বিভিন্ন কোম্পানির ৬৭ হাজার ৫৪০ টাকা মূল্যের বাক্সবন্ধি প্যাকেট করা আরও এক বাক্স নতুন মোবাইল ফোনসেট নেই।

আশ্চর্য্য হওয়ার কিছক্ষণ পর উপরদিকে তাকিয়ে দেখেন দোকানের টিন কাটা। এক পর্যায়ে বুঝতে পারেন সংঘবদ্ধ চুরেরা তার দোকান ঘরের টিন কেটে ভিতরে প্রবেশ করে নগদ টাকা ও মালামালসহ প্রায় এক লাখ ৭৪ হাজার ৫৪০ টাকার মালপত্র নিয়ে গেছে।

এরপর থানার (অভিযোগের জন্য ব্যবহৃত) মুঠোফোনে কল দিয়ে বিষয়টি জানালে ওইদিন দুপুরে এসআই বিনয় ভূষন চক্রবির্ত ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যান। তার পর ওইদিন বিকেলে মামলা রুজ্জুর জন্যে থানায় লিখিত অভিযোগও দেন। পরবর্তিতে আরও বেশ ক’বার ঘটনাস্থলে গিয়ে তদন্ত করেন। কিন্তু ১২দিনেও কাজের কাজ কিছুই হয়নি।


ডেসিস/জকে/ ২০ জুলাই ২০২২ইং

শেয়ার করুন

পাঠকের মতামত

এ বিভাগের আরো সংবাদ

Google Ad Code Here